জয়পাল, জসসির দেহ সনাক্ত করল পাঞ্জাব পুলিশের এসটিএফ, আজই ময়নাতদন্ত

0
337
Body Identify by Punjab Police

জয়পাল, জসসির দেহ সনাক্ত করল পাঞ্জাব পুলিশের এসটিএফ, আজই ময়নাতদন্ত

ভরদুপুরে নিউটাউনের সুখবৃষ্টি আবাসনে এসটিএফের এনকাউন্টারে নিহত ২ দুষ্কৃতী জসসি খাড়ার এবং জয়পাল ভুল্লারের আজ ময়নাদতন্ত হবে। ঘটনাস্থল পরিদর্শনে যাবে পাঞ্জাব পুলিশও। ইতিমধ্যেই কলকাতায় এসে পৌঁছেছে পাঞ্জাব পুলিশের এসটিএফের প্রতিনিধিরা। এবং তাঁরা জয়পাল ও জসসির মৃতদেহ শনাক্ত করেছেন। এর আগে কলকাতা পুলিশের এসটিএফের তরফে জানানো হয়েছে এনকাউন্টারের পর ঘটনাস্থল থেকে ৫টি আধুনিক আগ্নেয়াস্ত্র এবং ৮৯ রাউন্ড গুলি এবং প্রায় ৭ লক্ষ টাকা উদ্ধার হয়েছে।

এনকাউন্টারের পর রাতভর সুখবৃষ্টির ওই ফ্ল্যাটে তল্লাশি চালায় সিআইডি। এখন তদন্তের খাতিরে আবসানটিকে ঘিরে রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। এদিকে সংঘর্ষে আহত পুলিশ কর্মীর অবস্থা আপাতত স্থিতিশীল বলে জানা গিয়েছে।

বুধবার বেলা সাড়ে ৩টে নাগাদ হঠাৎই গুলির শব্দ শোনা যায় নিউটাউনের সাপুরজি-পালনজি আবাসনে। এক প্রত্যক্ষদর্শীর জানান অন্তত ৩ থেকে ৪ রাউন্ড গুলি চলেছে। এক পুলিশকর্মীর হাতেও গুলি লেগেছে। প্রায় ১০ হাজার ফ্ল্যাট থাকালেও হাতে গোনা কয়েকটি সিসিটিভি কেন ছিল ওই আবাসন চত্বরে? উঠছে সে প্রশ্নও।

সুখবৃষ্টি আবাসনের বাসিন্দাদের তরফে জানা গিয়েছে, অধিকাংশ ক্ষেত্রেই ফ্ল্যাট মালিকরা সেখানে থাকেন না। এজেন্সিকে দায়িত্ব দিয়ে দেওয়া হয় ভাড়াটিয়া খুঁজে দেওযার। সে ক্ষেত্রে ফ্ল্যাটের মালিকরা জানেনই না কারা থাকছে সেখানে। এমনকি এজেন্সি যাকে ভাড়া দিচ্ছে, তিনিও না থেকে অন্য কেউ থাকছেন সেখানে।

পুলিশের তদন্তে উঠে এসেছে এক এজেন্সির মাধ্যমে ফ্ল্যাটটি ভাড়া নেওয়া হয়েছিল। নিউটাউনের সাপুরজি আবাসনে ভাড়া নেয় ওই দুজন। তারপর গত মাস থেকে থাকতে শুরু করে তারা। জানা গিয়েছে, ইতিমধ্যেই ফ্ল্যাটের আসল মালিকের সন্ধান পেয়েছে পুলিশ। তাদের সঙ্গেও কথা বলার চেষ্টা চলছে। পুলিশি তদন্তে আরও জানা গিয়েছে, লুধিয়ানায় ধৃত ভরত কুমারের মাধ্যমেই কলকাতায় আসে ২ গ্যাংস্টার। ভরত কুমারের কাছ থেকে বাংলার নম্বর দেওয়া গাড়ি পায় জসপালরা। ভরত কুমারেরই যোগাযোগ রয়েছে কলকাতার সঙ্গে।