খালি চোখে, শুধুমাত্র ছবি দেখে খুঁজে দিলেন বিক্রম ল্যান্ডার

0
840
vikram-lander

খালি চোখে, শুধুমাত্র ছবি দেখে এই ইঞ্জিনিয়ার খুঁজে পেল বিক্রম ল্যান্ডার

চেন্নাইয়ের ৩৩ বছর বয়সী ইঞ্জিনিয়ার সন্মুগ সুব্রহ্মণ্যন বাড়িতে বসেই চিহ্নিত করেছেন চন্দ্রযানের ধংসাবশেষ। শুধুমাত্র কিছু ছবি দেখেই খালি চোখে কোন রকম যন্ত্রপাতি ছাড়াই। নাসার তরফে তাঁর নাম প্রকাশ করা হয়।  তাঁকে কৃতিত্ব দেওয়ার জন্য স্বভাবতই বেশ খুশি সন্মুগ। সংবাদমাধ্যমের সামনে তিনি জানান, কী ভাবে এই অসাধ্যসাধন তিনি করলেন। যেখানে ইসরো, নাসার মতো মহাকাশ গবেষণা সংস্থা ল্যান্ডার বিক্রমের ধংসাবশেষ খুঁজে পায়নি, সেখানে স্রেফ বাড়িতে বসেই তিনি কী ভাবে সবটা খুঁজে পেলেন।

সন্মুগ জানিয়েছেন, নাসা ও ইসরো চন্দ্রযানের ধংসাবশেষ খুঁজে না পাওয়াতেই তাঁর এই বিষয়ে আগ্রহ আরও বেড়ে যায়। তিন বলেন, “আমি অবাক হচ্ছিলাম কেন ইসরো বা নাসা ল্যান্ডার বিক্রমের ধংসাবশেষ খুঁজে পাচ্ছে না। নাসা চাঁদের যে অংশে বিক্রম নেমেছিল সেখানকার অনেক ছবি প্রকাশ করে। আমি দুটো ছবি দুটো ল্যাপটপে পাশাপাশি নিয়ে ভাল করে দেখি। একটা ছবি আগেকার। অন্য ছবিটি চন্দ্রযানের পরের। দুটো ছবি ভাল করে দেখে আমি বুঝতে পারি তাতে কিছুটা ফারাক রয়েছে। যদিও খালি চোখে একবারে সেই ফারাক চোখে পড়ে না। অনেক সময় লেগেছিল আমার। শেষ পর্যন্ত আমি বুঝতে পারি চন্দ্রযানের পরের ছবিতে এমন কিছু জায়গা আছে যেটা আগের ছবিতে নেই। সেই পিক্সেলগুলোকে আমি চিহ্নিত করি।”

আরও পড়ুন –বিশাল কুমির উদ্ধার গ্রাম থেকে, দেখে নিন ভয়ঙ্কর সেই ভিডিও

তারপরেই ইসরো ও নাসার সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেন সন্মুগ। ৩ অক্টোবর একটি টুইট করেন সন্মুগ। সেই টুইটে তিনি জায়গা চিহ্নিত করে লেখেন, “এটা কি ল্যান্ডার বিক্রম ? ( নামার জায়গা থেকে প্রায় ১ কিলোমিটার দূরে ) মনে হয়ে ল্যান্ডার চাঁদের ধুলোর মধ্যে ঢাকা পড়ে গিয়েছে।” ইসরো ও নাসাকে ট্যাগ করে এই টুইট করেন তিনি। তারপর ১৭ নভেম্বর আরও কয়েকটি ছবি দিয়ে টুইট করেন সন্মুগ।

কিন্তু ইঞ্জিনিয়ার হয়ে হঠাৎ মহাকাশ গবেষণায় এই আগ্রহ কী ভাবে হল সন্মুগের? সে উত্তরও অবশ্য নিজেই দিয়েছেন তিনি। সন্মুগ জানিয়েছেন, “আমার ছোট থেকেই মহাকাশ গবেষণা নিয়ে আগ্রহ। যেদিন থেকে বুঝতে শিখেছি প্রত্যেকটা স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ দেখেছি। আমি যে এই কাজে ইসরো ও নাসাকে সাহায্য করতে পারলাম তাতে আমি খুব খুশি।”