এই মুহূর্তেই দেশব্যাপী এনআরসি করার পরিকল্পনা নেই, বললেন অমিত শাহের ডেপুটি

9416
378
US Federal wants to ban Amit Saha

এই মুহূর্তেই দেশব্যাপী এনআরসি করার পরিকল্পনা নেই, বললেন অমিত শাহের ডেপুটি

বিতর্কিত নাগরিকত্ব (সংশোধনী) আইন নিয়ে এই মুহূর্তে গোটা দেশে ব্যাপক বিক্ষোভ দেখা যাচ্ছে। ছাত্র থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষ, সবাই এই আইনের বিরোধিতা করে পথে নেমেছেন। বিক্ষোভ কোথাও শান্ত তো কোথাও অশান্ত রূপ ধারন করেছে। এই অবস্থায় নরেন্দ্র মোদীর সরকারের একজন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী জানালেন যে এই মুহূর্তেই গোটা দেশে এনআরসি করার পরিকল্পনা অবশ্য সরকারের নেই।

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী জি কে রেড্ডি বিরোধী দলগুলিকে দোষারোপ করে বলেন যে, তারা উত্তেজিত জনতার সহিংস আন্দোলনকে আরও মদত দিচ্ছে।

তিনি বলেন, এই আইন এখনো কার্যকর হয়নি, এবং যারা হিংসার সাথে জড়িত নয় এমন কারোর সাথে সরকার কথা বলতেও ইচ্ছুক।

তিনি আরও বলেন যে, এই আইন কিভাবে ও কখন কার্যকর করা হবে সেই বিষয়ে মন্ত্রীসভায় এখনো কোন খসড়া পাস হয়নি।

প্রতিমন্ত্রী এনআরসি সম্পর্কে মানুষকে সঠিক তথ্য জানানোর জন্যে হিন্দি ও উর্দু খবরের কাগজে এর বিজ্ঞাপন দেওয়ার কথা বলেন যাতে বিরোধীরা মানুষকে ভুল বোঝাতে না পরে।  

রেড্ডি বলেন যে, এনআরসির প্রয়োজনীয় বিধিগুলি এখনো খসড়া করা হয়নি এবং এই আইন কার্যকর করতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের বেশ কিছুটা সময়ও লাগবে।

তিনি আশ্বস্ত করে বলেন যে, আইন কার্যকর করার আগে কেন্দ্র সব স্টকহোল্ডারদের সাথে আলোচনা বলে নেবে।

তিনি আরও যোগ করে বলেন যে, দেশে স্বাভাবিক অবস্থা ফিরে এলে সরকার সিএএর খসড়া করার আগে সবার সাথে কথা বলবে।

যদিও স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর কথা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের কথার সম্পূর্ণ বিপরীত। আগেই ঝাড়খণ্ডে নির্বাচনী প্রচারে গিয়ে শাহ বলেন যে, ২০২৪ এর নির্বাচনের আগেই দেশজুড়ে এনআরসি কার্যকর হবে এবং সমস্ত অবৈধ অভিবাসীদের দেশ থেকে বিতাড়িত করা হবে। 

বিরোধীদের মতে, এই আইনের ফলে সরকার অধিকাংশ মুসলমানকে দেশ থেকে বহিষ্কার করে সেই জায়গায় অন্যদের দেশের নাগরিক করতে চাইছে, যাতে তাদের ভোটব্যাঙ্ক সুরক্ষিত হয়।

প্রসঙ্গত, গত আগস্টে, আসামে এনআরসি হওয়ার ফলে প্রায় ১৯ লাখ মানুষ নাগরিকের তালিকা থেকে বাদ চলে যায়, যার মধ্যে প্রায় ১২ লাখ মানুষ হিন্দু ছিলেন। বিজেপি শাসিত রাজ্য হওয়া সত্ত্বেও এইরকম হওয়ায় সেখানে বিক্ষোভ দেখা দিয়েছিল।